আজ ভেড়ামারা প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও দৈনিক ইত্তেফাকের প্রবীণ সাংবাদিক ডাঃ এ কে এম কাওছার হোসেনের ১ম মৃত্যু বার্ষিকী

আব্দুল আলিম ॥
কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা পৌরসভার তিনবার নির্বাচিত তৎকালীন কমিশনার, পৌরসভার ভাইস চেয়ারম্যান, ভেড়ামারা প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার প্রবীণ সাংবাদিক বর্ষীয়ান সাংবাদিক ও ভেড়ামারা প্রেসক্লাবের  সভাপতি জাহাঙ্গীর হোসেন জুয়েলের বড় ভাই  আলহাজ্ব ডাঃ এ কে এম কাওছার হোসেনের আজ রবিবার ১ম মৃত্যু বার্ষিকী।
২০২১ সালে ২রা অক্টোবর সন্ধ্যা ৬টা ৩০ মিনিটের সময় বর্ষীয়ান সাংবাদিক আলহাজ্ব এ কে এম কাওছার হোসেন ভেড়ামারা মধ্যবাজার সরকারি গালর্স স্কুল পাড়াস্থ নিজ বাড়িতে ইন্তেকাল করেন (ইন্না---রাজিউন)। জীবিতাবস্থায় ডাঃ এ কে এম কাওছার হোসেন একজন পরহেজগার ব্যক্তি ছিলেন। সমাজে নির্ভেজাল ভাল মানুষ হিসেবে তিনি স্বীকৃতি লাভ করে পরিচিত ও সাংবাদিক মহলে শ্রদ্ধা ও ভালবাসার স্থান লাভ করেন। খুবই বিনয়ী ও অমায়িক ব্যবহারের ব্যক্তিত্ব ছিলেন।
আলহাজ্ব ডাঃ এ কে এম কাওছার হোসেন সাংবাদিকতায় এক কিংবদন্তী মহাপুরুষ। দেখতে দেখতে পেরিয়ে গেছে একটি বছর। ২০২১ সালে ২রা অক্টোবর নিজ বাড়িতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। এমন মৃত্যু আজও স্তম্ভিত করে ভেড়ামারাবাসীকে। তার মৃত্যুর পর জানাযায় অংশ নিতে হাজার হাজার মানুষের স্রোতধারা তৈরি হয়েছিল ভেড়ামারা সরকারি কলেজ মাঠে। তার প্রতি মানুষের এমন হৃদয়স্পর্শী ভালোবাসা ইতিহাসে দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। সৎ ও ন্যায়ের এক উন্নত দৃষ্টান্ত আলহাজ্ব ডাঃ এ কে এম কাওছার হোসেন।  এ দেশের একজন পরিচ্ছন্ন সাংবাদিক নেতা। উনি খুব সহজেই মানুষের সাথে মিশে যেতেন। কোন অহংকার বা লোভ লালসা তার মাঝে ছিল না।
আমাদের মাথার ছায়া হিসেবে ছিলেন আলহাজ্ব ডাঃ এ কে এম কাওছার হোসেন। এমন একজন মাটির মানুষ, যার মাঝে কোন লোভ ছিল না। পদের কাঙাল ছিলেন না তিনি। পৌরসভার তিনবার নির্বাচিত তৎকালীন কমিশনার, পৌরসভার ভাইস চেয়ারম্যান থাকাকালিন সময় তার নির্বাচনী এলাকায় পায়ে হেঁটে নির্বাচনের প্রচার করেছেন। যে যখন যা দিয়েছে তাই খেয়ে আবার প্রচারণায় নেমেছেন। তাই হয়তো তিনি আজো মানুষের কাছে শ্রদ্ধার মানুষ হিসেবে বিরাজ করছেন। তার আদর ভালোবাসা ও শাসনের মধ্যে পিতার শূন্যতা পূরণ করতে পেরেছিলাম। তিনিই আমার সাংবাদিকতায় শিক্ষাগুরু। আদর্শিক পথ অনুসরণ করে সাংবাদিকতায় পথ পাড়ি দিতে চাই। তার অসমাপ্ত স্বপ্নগুলো বাস্তবায়ন করতে চাই।
প্রবীণ সাংবাদিক ও বিশিষ্টজনেরা মনে করেন, সৎ, আদর্শ ও ন্যায়ের অনুস্মরণীয় এবং অনুকরণীয় ব্যক্তিত্ব ছিলেন  ডাঃ এ কে এম কাওছার হোসেন। তার সময়ে সাংবাদিক চর্চারও ভালো পরিবেশ ছিল। বর্তমানে তারা সে পরিবেশ ও জায়গা পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ করেন। ডাঃ এ কে এম কাওছার হোসেন বেঁচে থাকলে সাংবাদিক চর্চায় আরো এগিয়ে যেত বলে মনে করছেন তারা। 

Post a Comment

Previous Post Next Post