ভেড়ামারা উপজেলা আঃ লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মেহেরুল ইসলামসহ দুজনকে গুলি করে খুন ॥ ৫ জনের যাবজ্জীবন

চেতনায় কুষ্টিয়া প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক  মেহেরুল ইসলাম (৫২) ও ভেড়ামারা বিজিএম কলেজের সহকারি অধ্যাপক  বান্দা ফাত্তাহ মোহনকে (৫৬) গুলি করে হত্যা মামলায় ৫ আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। সেই সঙ্গে তাদের ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এ মামলায় ১০ আসামিকে খালাস দিয়েছেন আদালত।
রোববার (২৩ জুলাই) দুপুরের দিকে কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক  তাজুল ইসলাম এ রায় দেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) অনুপ কুমার নন্দী। যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন, কুষ্টিয়া শহরের আড়ুয়াপাড়া এলাকার মৃত ইদ্রিস আলীর ছেলে তারিক, মোশাররফ হোসেনের ছেলে কামাল রেজা নিপু, আব্দুর রশিদের ছেলে সিরাজুল ইসলাম মাসুদ, নবীর আলীর ছেলে রায়হান আলী এবং সদর উপজেলার কাঞ্চনপুর গ্রামের চাঁদ আলীর ছেলে সিদ্দিক (বাংলা ভাই)। রায় ঘোষণার সময় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের মধ্যে সিদ্দিক বাদে সবাই আদালতে উপস্থিত ছিলেন। রায় ঘোষণার পর পরই কারাদণ্ডপ্রাপ্ত চার আসামিকে পুলিশ পাহারায় জেলা কারাগারে পাঠানো হয়। দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি সিদ্দিক পলাতক রয়েছেন। এ মামলায় ১০ আসামিকে খালাস দিয়েছেন আদালত।
আদালত সূত্রে জানা যায়, আসামিদের চাঁদা না দেওয়ায় ২০০৯ সালের ১৫ আগস্ট রাত ৯টা ১৫ মিনিটের দিকে ভেড়ামারা শহরের রেলবাজার এলাকায় একটি কাপড়ের দোকানে বসে থাকা অবস্থায় ভেড়ামারা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মেহেরুল ইসলাম (৫২) ও বিজিএম কলেজ শিক্ষক বান্দা ফাত্তাহ মোহনকে (৫৬) আসামিরা এলোপাতাড়ি গুলি করে। মোটরসাইকেল যোগে ৭/১০ জনের একটি সন্ত্রাসী দল তাঁদের ওপর এলোপাতাড়ি গুলি করে। এতে আওয়ামী লীগ নেতা মেহেরুল ইসলাম এবং কলেজ শিক্ষক মোহন মারা যান। এই ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হন আরও কয়েকজন। এ ঘটনার তিন দিন পর ২৮ আগস্ট ভেড়ামারা থানার এসআই শেখ আমিনুল ইসলাম বাদী হয়ে মামলা করেন।
মামলার তদন্ত শেষে ২০১১ সালের ২২ জুলাই তদন্তকারী কর্মকর্তা আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেন। এরপর আদালত এ মামলায় ১৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য প্রমাণ শেষে রায় ঘোষণার দিন ধার্য করেন। নির্ধারিত তারিখে আদালতের বিচারক মামলার ৫ আসামিকে শাস্তির আদেশ দেন।
আদালতের পিপি অনুপ কুমার নন্দী বলেন, ভেড়ামারা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মেহেরুল ইসলাম (৫২) ও কলেজ শিক্ষক বান্দা ফাত্তাহ মোহনকে (৫৬) গুলি করে হত্যা মামলায় দোষী প্রমাণিত হওয়ায় ৫ আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

Post a Comment

Previous Post Next Post