বাড়িওয়ালা বৃদ্ধকে হত্যার দায়ে স্বামী-স্ত্রীর যাবজ্জীবন

চেতনায় কুষ্টিয়া প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় জালাল উদ্দিন (৭২) নামে বাড়িওয়ালা এক বৃদ্ধকে গলা কেটে হত্যার দায়ে সাহাবুল ও তার স্ত্রী মারিয়া খাতুনকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে তাদের ২০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মুহাম্মদ তাজুল ইসলাম এ রায় প্রদান করেন। রায়ের তথ্য নিশ্চিত করেন আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) অনুপ কুমার নন্দী।
দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন মিরপুর উপজেলার নওপাড়া গ্রামের মৃত মুন্তাজ মন্ডলের ছেলে সাহাবুল ইসলাম ও তার স্ত্রী মারিয়া আহম্মেদ। আদালতে রায় ঘোষণার সময় আসামি সাহাবুল উপস্থিত থাকলেও তার স্ত্রী মারিয়া খাতুন পলাতক ছিলেন।
আদালত সূত্রে জানা যায়, অল্প বেতনে চাকরি করায় সংসার না চলায় ২০২০ সালের ২৫ জানুয়ারি আসামি সাহাবুল ও তার স্ত্রী মারিয়া বাড়িওয়ালা জালালের বাসায় চুরি করার পরিকল্পনায় করেন। নিহতের স্ত্রী রিনা খাতুন বাড়ির বাইরে গেলে আসামিরা মেইন গেট দিয়ে বাসায় প্রবেশ করে বাড়ির মালামাল চুরি করেন। চুরির বিষয়টি বাড়ির মালিক জালাল টের পেয়ে চিৎকার শুরু করলে আসামি সাহাবুল ও তার স্ত্রী মারিয়া বাড়ির মালিককে মাটিতে ফেলে মুখ, হাত-পা চেপে ধরে ধারাল বটি দিয়ে জবাই করে হত্যা করেন। ঘটনার পর নিহতের স্ত্রী রিনা খাতুন কুষ্টিয়া মডেল থানায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের নামে হত্যা মামলা দায়ের করেন।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আননুর যায়েদ তদন্ত শেষে ২০২০ সালের ৩১ জানুয়ারি আসামিদের শনাক্ত করে মামলার চার্জশিট দাখিল করেন।
মামলা দায়েরের পর স্বামী-স্ত্রী দুজন পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয় এবং আদালতে হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন। আদালত এ মামলায় ১১ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য প্রমাণ শেষে ১৪ জুন রায় ঘোষণার দিন ধার্য করেন।
আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) অনুপ কুমার নন্দী বলেন, হত্যা মামলায় দোষী প্রমাণিত হওয়ায় স্বামী ও স্ত্রীকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। রায় ঘোষণার সময় স্বামী উপস্থিত ছিলেন। কিন্তু সাহাবুলের স্ত্রী আসামি মারিয়া উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিয়ে বর্তমানে পলাতক রয়েছেন।

Post a Comment

Previous Post Next Post