Header Ads

ভেড়ামারায় পানিতে ডুবে কলেজ শিক্ষার্থীর মৃত্যুতে এলাকায় শোকের মাতম

চেতনায় কুষ্টিয়া প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় বন্ধুদের সঙ্গে বেড়াতে গিয়ে খালের পানিতে ডুবে মোহতাসিম আদিব নামে এক কলেজ শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে। উপজেলার চাঁদগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের সামনে জি-কে খালে এই ঘটনা ঘটে। পানিতে ডুবে কলেজ শিক্ষার্থীর মৃত্যুতে শোকের এলাকায়  মাতম। পরিবার ও তার বন্ধুরা কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে। বুধবার সকাল ৯টার সময় ভেড়ামারা চাঁদগ্রাম গোরস্থানে জানাযা শেষে দাফন সম্পন্ন হয়। সকাল ১০ টার সময় ভেড়ামারা সরকারি কলেজের ছাত্র মোহতাসিম আদিব স্বরণে বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।
নিহত মোহতাসিম আদিব (১৮) ভেড়ামারা শহরের সরকারি গার্লস স্কুল পাড়ার বাসিন্দা এবং ওহিদুল ইসলামের ছেলে। তিনি ভেড়ামারা সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী ও এবারের এইচএসসি পরীক্ষার্থী ছিলেন।
ভেড়ামারা ফায়ার সার্ভিসের সাব স্টেশন অফিসার আজিজুল হক বলেন, ঘটনার সংবাদ পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা উপস্থিত হয়ে সন্ধান চালানো শুরু করে। আদিবকে উদ্ধার করা হয়। এরপর ভেড়ামারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।
পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয়রা জানান, চাঁদগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের সামনে বেড়াতে যায় আদিবসহ নয় বন্ধু। একপর্যায়ে জি-কে (গঙ্গা-কপোতাক্ষ) খালের পানিতে নেমে গোসল করতে যায় তারা। আদিবসহ সাতজন সাঁতার জানত না। হঠাৎ আদিবসহ তিনজন গভীর পানিতে চলে গেলে কোনোরকম দুজন ওঠে আসলেও আদিব গভীর পানিতে তলিয়ে যায়। এঘটনার পর পরই পুলিশ, ফায়ার সার্ভিসের কর্মী ও স্থানীয়রা উপস্থিত হয়ে উদ্ধার কাজ চালানো শুরু করে। প্রায় এক ঘণ্টা পর তাঁকে উদ্ধার হয়।
আদিবের বন্ধু প্রিন্স জানান, গোসল করার একপর্যায়ে আদিব গভীর পানিতে চলে যায়। এ সময় আমাদের মধ্যে দু’জন সাঁতার জানা বন্ধু তাঁকে বাঁচাতে গেলে তারাও ডুবে যেতে থাকে। একপর্যায়ে দু’জন তীরে ফিরে আসলেও আদিব পানির নিচে তলিয়ে যায়।
ভেড়ামারা থানার উপপরিদর্শক পার্থ ঘোষ জানান, স্রোতে ভেসে না যায় সে জন্য ভেড়ামারা জি-কে পাম্প হাউসের নির্বাহী প্রকৌশলীকে বলে আধা ঘণ্টার জন্য পানি সরবরাহ বন্ধ রাখা হয়। এতে ক্যানেলের স্রোত কমে যায়। পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয়রা আদিবকে উদ্ধারে পানিতে নেমে সন্ধান চালায়। খোঁজাখুঁজির প্রায় এক ঘণ্টা পর পানির তলদেশ থেকে আদিব নামের ওই শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে তাঁকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।
ভেড়ামারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মজিবুর রহমান বলেন, পরিবারের পক্ষ থেকে কোন অভিযোগ না থাকায় লিখিত নিয়ে পোস্টমর্টেম ছাড়াই নিহতের পরিবারের কাছে মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে।

No comments

Powered by Blogger.