প্রয়াতদের স্মৃতি সংরক্ষণে ইত্তেফাকের সাংবাদিক হিমুর ব্যতিক্রমি উদ্যেগে

চেতনায় কুষ্টিয়া প্রতিবেদক ॥ ইত্তেফাকের কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলা সংবাদদাতা হুয়ায়ুন কবির হিমু প্রয়াতদের স্মৃতি সংরক্ষণে ব্যতিক্রমী উদ্যেগ গ্রহণ করেছেন। গত দুই মাসে প্রায় ছয়শতাধিক প্রয়াত ব্যক্তির ছবি সংগ্রহ করে সেটির ভিডিও তৈরী করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রীতিমত ব্যাপক সাড়া ফেলে দিয়েছেন। এই কাজে তাকে সহযোগীতা বরছেন স্থানীয় দুই যুবক।
জানা যায়, কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলায় বিভিন্ন সময় মৃত্যুবরণ করা প্রয়াত ব্যক্তিদের ছবি সংগ্রহ করে সেটি সংরক্ষণের এমন ব্যক্তিক্রমি উদ্যগ গ্রহণ করেন দৈনিক ইত্তেয়াকের মিরপুর উপজেলা  সংবাদদাতা সাংবাদিক হুয়ায়ুন কবির হিমু। এই কাজে তাকে সহযোগীতায় রয়েছেন স্থানীয় সাংবাদি সুমন মাহমুদ ও ব্যবসায়ী রফিকুল জোয়ার্দ্দার। তিন যুবকের এমন উদ্যেগ ইতমধ্যে বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছে।
এ বিষয়ে সাংবাদিক হুমায়ুন কবির হিমু বলেন, মিরপুর উপজেলায় বিভিন্ন সময় অসংখ্য মানুষ প্রয়াত হয়েছেন। এসব মানুষ কালের বিবর্তনে যেন হারিয়ে না যায় সেইদিকে লক্ষ্য রেখে গত দুইমাস আগে একটি উদ্যগ গ্রহণ করি। এরপর উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে মৃত ব্যক্তিদের ছবি সংগ্রহ করি। এই কাজে আমাকে সার্বিক সহযোগীতা করেন সহকর্মী সাংবাদিক সুমন মাহমুদ ও রফিকুল জোয়ার্দ্দার।
তিনি আরও বলেন, আমরা এখন পর্যন্ত প্রায় ছয়শতাধিক মৃত ব্যক্তির ছবি সংগ্রহ করেছি। এইসব ছবি ২০টি খন্ড আকারে ভিডিও নির্মাণ করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করেছি। আমাদের ভিডিওতে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকল মানুষের ছবি স্থান পেয়েছে।
আগামীর পরিকল্পনার সম্পর্কে এই সাংবাদিক জানান, আমাদের ইচ্ছা এক হাজার প্রয়াত ব্যক্তিদের ছবি সংগ্রহ শেষ হলে এটি উন্মুক্ত স্থানে বড় পর্দায় প্রদর্শন করা। তবে সেটি নির্ভর করছে করোনা পরিস্থিতির উপর।
তিনি আরও জানান, আমরা আমাদের এই কাজ সামনে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই। ভবিষ্যতে এটি ইউনিয়ন ভিত্তিক করার পরিকল্পনা রয়েছে।
রফিকুল জোয়ার্দ্দার বলেন, আমরা ব্যক্তিগত ভাবে এই প্রয়াতদের মুখচ্ছবি সংগ্রহ করে সোশাল মিডিয়ায় প্রচার করার কারণে সকল মানুষের কাছ থেকে বেশ ভালবাসা পেয়েছি। যে সকল প্রয়াত ব্যক্তি হারিয়ে গেছেন কিম্বা অনেকটা ভুলেই গেছেন এই সকল প্রয়াতদের মুখচ্ছবি তুলে ধরার কারণে স্মৃতি পটে তারা আবার ভেসে উঠছেন। এই কাজে তাদের আত্নীয়স্বজনরা আমাদের সার্বিক সহযোগীতা করছেন।
সুমন মাহমুদ বলেন, আমরা ছবি সংগ্রহ থেকে শুরু করে ভিডিও নির্মাণ সব কিছু নিজেরাই করি। আমাদের কাজে সবাই যেভাবে সহযোগীতা করছেন এই ধারা অব্যাহত থাকলে 'প্রয়াতদের মুখচ্ছবি'র এই জার্নি আরো এগিয়ে নিতে পারবো। 

Post a Comment

0 Comments