৭ বছর পর যাবজ্জীবন সাজা পাওয়া আসামি গ্রেপ্তার

চেতনায় কুষ্টিয়া প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়ার কুমারখালী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান জামিল হোসেন বাচ্চু হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন পাওয়া আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।
র‌্যাব কুষ্টিয়া ক্যাম্পের প্রধান স্কোয়াড্রন লিডার ইলিয়াস খান জানান, চেয়ারম্যান বাচ্চু হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন মানিক। এ ছাড়া তার বিরুদ্ধে কুমারখালী থানায় গুলি, বোমা নিক্ষেপ ও অপহরণের আরও দুটি মামলা রয়েছে। রাজশাহী মহানগরীর চন্দ্রিমা থানার কৃষ্টগঞ্জ এলাকা থেকে বৃহস্পতিবার রাতে আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার মো. মানিকের বাড়ি কুষ্টিয়ার কয়া ইউনিয়নের বানিয়াপাড়া গ্রামে। তিনি পরিচয় গোপন করে রাজশাহীতে অবস্থান করতেন।
তিনি জানান, চেয়ারম্যান বাচ্চু হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন মানিক। এ ছাড়া তার বিরুদ্ধে কুমারখালী থানায় গুলি, বোমা নিক্ষেপ ও অপহরণের আরও দুটি মামলা রয়েছে।
মানিক রাজশাহীতে রকিব উদ্দিন নামে জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি করে বাস করতেন। কিন্তু নিজ এলাকা কুষ্টিয়ার কয়ার সঙ্গে যোগাযোগ ছিল তার। মাঝে মধ্যে এলাকায় গিয়ে অপরাধ করে আবার ফেরত যেতেন। মানিককে কুমারখালী থানা পুলিশের মাধ্যমে আদালতে পাঠানো হবে বলেও জানান র‌্যাবের এ কর্মকর্তা।
২০০৯ সালের ২৫ জুলাই প্রকাশ্যে খুন করা হয় কয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জামিল হোসেন বাচ্চুকে। তার হত্যা মামলাটি চাঞ্চল্যকর মামলা হিসেবে খুলনা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে ২০১৪ সালে বিচার শেষ হয়। সেখানে মানিকসহ ১২ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়।

Post a Comment

0 Comments