ভেড়ামারা প্রেসক্লাবে পৌর কাউন্সিলর নজরুল ইসলামের সাংবাদিক সম্মেলন

চেতনায় কুষ্টিয়া প্রতিবেদক ॥ বিগত ০৭/০৫/২০২১ ইং তারিখে মোঃ মাহাবুব বিন হাসান ও মোছাঃ বিউটি আক্তারের মিথ্যা ও ভিত্তিহীন সাংবাদিক সম্মেলনের বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ ভেড়ামারা প্রেসক্লাবে আজ দুপুর ১২টার সময় সাংবাদিক সম্মেলন: সুপ্রিয় সাংবাদিকবৃন্দ আচ্ছালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ আমি মোঃ নজরুল ইসলাম, কাউন্সিলর ০২ নং ওয়ার্ড ভেড়ামারা পৌরসভা, ভেড়ামারা কুষ্টিয়া স্ব-শরীরে উপস্থিত হয়ে আপনাদের সাথে আমার বিরুদ্ধে গত ০৭/০৫/২০২১ ইং তারিখে করা মাহাবুব ও বিউটির মিথ্যা সাংবাদিক সম্মেলনের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদের জন্য হাজির হলাম।
আমি আপনাদের মাধ্যমে প্রকৃত তথ্যের আলোকে সঠিক তথ্য উপস্থাপন করছি সাংবাদিক সম্মেলনে উল্লেখিত দু’জনের মিথ্যা তথ্য বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত। যা দিকভ্রষ্ট পথিকের পাগলের প্রলাপ মাত্র। আমাকে হেয় প্রতিপন্ন করার ঘৃন্য ঘড়যন্ত্রের অংশ বিশেষ। আমার বিরুদ্ধে কেন মোঃ মাহাবুব বিন হাসান ও মোঃ বিউটি আক্তারের মিথ্যা সাংবাদিক সম্মেলন, তার পুরোদস্তর ঘটনা ও সত্য তথ্য জানতে ঘটনার অন্তরালে লুকিয়ে থাকা পিছনের কিছু ঘটনা আপনাদের সামনে তুলে ধরতে চাই। আশাকরি সাংবাদিক বৃন্দের সঠিক সংবাদ পত্রিকায় প্রকাশের জন্য তা যথেষ্ট সহায়ক হবে। আমার ২নং ওয়ার্ডস্থ ফারাকপুর গ্রমের মৃত আনোয়ার হোসেন মৃত্যুকাল আনুমানিক দশ বছরের উপরে। মৃত্যুকালে আনোয়ার হোসেন তার স্ত্রী মোছাঃ বিউটি আক্তার এক ছেলে ও দুই মেয়ে রেখে যান। এর মধ্যে এক ছেলে ও এক মেয়ে বর্তমানে বিবাহিত ও তাদের সন্তানাদি রয়েছে। অন্য মেয়েটি ছোট। স্বামী মারা যাওয়ার পর মোছাঃ বিউটি আক্তার ছোট মেয়েটি নিয়ে বসবাস করেন। স্বামীর অবর্তমানে বিউটি আক্তার হরহামেশা পর পুরুষের সাথে অবাধে মেলামেশা করতে থাকেন।
 বিউটি আক্তারের স্বামী না থাকায় মোঃ মাহাবুব বিন হাসান বিউটি আক্তারের সহিত অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তোলেন এবং যত্রতন্ত্র বিউটি আক্তারের বাড়িতে দিনে বা রাতে যাতায়াত করতে থাকেন। মাহবুব বিন হাসান সমাজের প্রভাবশালী পরিবারের সন্তান হওয়ায়  এলাকাবাসী ভয়ে মুখ খোলেনি। মোঃ মাহবুব বিন হাসান, পিতা- বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ এ,এইচ,এম নুরুজ্জামান, ওয়ার্ড নং-০৪, নওদাপাড়া, ভেড়ামারা পৌরসভা, ভেড়ামারা কুষ্টিয়া। ব্যক্তি জীনে মাহবুবব বিন হাসান বিবাহিত। তার এক স্ত্রী, সদ্য বিবাহিতা এক কন্যা ও কলেজ পড়ুয়া এক পুত্র সন্তান রয়েছে। পারিবারিকভাবে প্রভাবশালী, সামাজিকভাবে প্রবল পরিচিত ও সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান হওয়া সত্বেও মাহবুব বিন হাসান, মোছাঃ বিউটি আক্তারের সহিত অবৈধভাবে দীর্ঘদিন মেলামেশা করতে থাকার কারনে এলাকাবাসী তার উপর ক্ষুব্ধ। বিগত ২১/০৪/২০২১ ইং তারিখ আনুমানিক রাত আটটার সময় মাহবুব বিন হাসান, মোছাঃ বিউটি আক্তারের বাড়ীতে প্রবেশ করে এবং আপত্তিকর অবস্থায় এলাকাবাসীর রোষানলে পড়েন। এলাকাবাসী মাহবুব বিন হাসানের যত্রতত্র মোছাঃ বিউটি আক্তারের বাড়ীতে যাতায়াতের কারন জানতে চাইলে মাহবুব এলাকাবাসীর উপর চড়াও হয় এবং বিশ্রী ভাষায় গাল-মন্দ করলে এলাকাবাসীর সাথে তার বাক বিতন্ডা হয়। ইফতার ও নামাজের পর আমি এলাকাবাসীর ফোন পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি শান্ত করি এবং প্রশাসনকে বিষয়টি অবহিত করি। ঐদিন দূর্যোগপূর্ন আবহাওয়ার কারনে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে যেতে কিছুটা বিলম্ব হয়। রাত দশটার সময় থানা পুলিশের কর্মকর্তা, পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিল মোঃ সোলায়মান, ২ নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর মোঃ সিরাজুল ইসলাম, বাহিরচর ইউপি ১ নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার মোঃ সৈয়দ আলী ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে বিষয়টি তাৎক্ষণিক নিষ্পত্তি হয় এবং থানা পুলিশ সাদা কাগজে উপস্থিত ব্যক্তিবর্গের স্বাক্ষর গ্রহন করে মাহবুবকে নিয়ে আসে। মাহবুব ভেড়ামারাতে ফিরে এসেই আমার নামে ও এলাকাবাসীর নামে কুৎসা রটাতে থাকে, এবং আমার নামে ৫,০০,০০০/= (পাঁচ লক্ষ টাকা) চাঁদা বাজি, হুমকি-ধামকির অভিযোগ তুলে ভেড়ামারা প্রেসক্লাবে মিথ্যা তথ্যের ভিত্তিতে সাংবাদিক সম্মেলন করে আমার ও আমার এলাকাবাসীর মান-ক্ষুণ্ন করার ব্যর্থ চেষ্টা করে এবং করছে। যা ভ্রান্ত, মিথ্যা, ভিত্তিহীন, বানোয়াট ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত।
প্রিয় সাংবাদিকবৃন্দ, একটি সত্য ঘটনাকে আড়াল করার জন্য বিউটি ও মাহবুব নানা ধরনের ছল চাতুরীর আশ্রয় নিচ্ছে। আমার ও আমার এলাকার ঘটে যাওয়া সত্য ঘটনা সরেজমিন পরিদর্শন করিয়া আপনারা সঠিক সংবাদ পত্রিকায় পরিবেশন করবেন, সে আশাবাদ রাখছি এবং আপনাদের মাধ্যমে প্রকৃত দোষী মাহবুব ও বিউটির ঘৃন্যকৃত কর্মের দৃষ্টান্তমূলক বিচার প্রত্যাশা করছি।
আপনারা সকলে সুস্থ থাকবেন, ভাল থাকবেন এবং সত্যের পথে অবিচল থাকবেন। ধন্যবাদ, খোদাহাফেজ।
 তাং-১০/০৫/২০২১। মোঃ নজরুল ইসলাম, কাউন্সিলর ওয়ার্ড নং-০২,ভেড়ামারা পৌরসভা,ভেড়ামারা, কুষ্টিয়া।

Post a Comment

0 Comments