Header Ads

শিপন হত্যা ঘটনায় দোকানপাট খুলতে বাঁধা দেওয়ায় অভিযোগ

মোশারফ হোসেন ॥ কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার পান্টি ইউনিয়নের শিপন হত্যা ঘটনাকে কেন্দ্র করে দোকানপাট খুলতে বাঁধা দেওয়ায় অভিযোগ উঠেছে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে। শনিবার সকালে এমন অভিযোগ করেন পান্টি ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক এনামুল হক।
যুবলীগ নেতা ও ব্যববসায়ী এনামুল হক বলেন, প্রতিপক্ষের সমর্থক শিপন কে। কে, বা, কাহারা হত্যা করেছে। এই হত্যা মামলায় রাজনৈতিক প্রতিহিংসা হিসেবে আমাদের আসামি করা হয়েছে। এই হত্যাকে কেন্দ্ররকরে প্রতিপক্ষ জাফর সাহেব সমর্থিত মাসুদ হোসেন মোল্লার লোক জন আমার কাঁচামালের আরত খুলতে দিচ্ছে না। আতর খুলতে গেলে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে।
যুবলীগ নেতা আরো বলেন, চলতি বছরে ৩ ফেব্রুয়ারী প্রতিপক্ষের লোকজন আমার কাছে চাঁদা দাবি করে। আমি দিতে অস্বীকার করি। এরপর ৪ এপিল দুপুরে  পান্টি বাজার  অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাত করে এবং গুরুতরভাবে জখম করে। আমি চিৎকার করলে আমার ছেলে সোহানুর রহমান ভাতিজা রনি আমাকে আসামিদের হাত থেকে রক্ষা করে। এর পর থেকেই আমাকে এরা বিভিন্ন ধরনের হয়রানি করছে। এঘটনায় মোঃ মোয়াজ্জেম জোয়াদ্দার (৫৫), মোঃ পাপন (১৯) শাহিন (২৬) সহ ১৩ জনকে আসামী করে মামলা করি।
এই বিষয়ে মাসুদ হোসেন (মোল্লা) বলেন, আমার প্রতিপক্ষরা আমাদের সমর্থন শিপন কে হত্যা করেছে। আমরা শোকাহত। এই ধরনের অভিযোগ অসত্য।
এলাকাবাসী জানায়, আধিপত্য বিস্তারে দীর্ঘদিন ধরে কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা জাহিদ হোসেন জাফর সমর্থিত মাসুদ মোল্লা গ্রুপের সাথে পান্টি ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সামিউর রহমান সুমন গ্রুপের এলাকায় বিরোধ চলে আসছে। বিরোধের জেরেই গত শনিবার (২২ মে) রাতে মাসুদ গ্রুপের শিপন খুন হন। এনিয়ে এলাকায় বেশ উত্তেজনা বিরাজ করছে।
কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বলেন, দুপক্ষের বিরোধের জেরে একজন খুন হন। এঘটনায় থানায় হয়েছে। তবে দোকান বন্ধের ঘটনায় কোন অভিযোগ পাইনি।

No comments

Powered by Blogger.