রান্নাঘরে স্ত্রীর অর্ধগলিত লাশ ॥ লাপাত্তা স্বামী

চেতনায় কুষ্টিয়া প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়া সদর উপজেলার মোল্লা তেঘড়িয়া ক্যানেলপাড়া এলাকার একটি বাসার রান্নাঘরে পুঁতে রাখা রিমি (২০) নামে এক গৃহবধূর গলিত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাতে ওই এলাকার মুরাদ আলীর বাড়ি থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। পরে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে পাঠায় পুলিশ।
কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শওকত কবির বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে রুবিনা নামে এক প্রতিবেশী ওই বাড়ির ভেতরে টিউবওয়েলের পানি আনতে গিয়ে নাকে পঁচা গন্ধ পান। বিষয়টি তিনি বাড়ির মালিক মুরাদ হোসেনকে জানালে পুলিশকে খবর দেয়া হয়। খবর পেয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানা পুলিশ এসে ওই বাড়ির রান্নাঘরের মাটি খুঁড়ে রিমি নামের ওই গৃহবধূর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে। পুলিশের ধারণা, প্রায় এক মাস আগে লাশটি মাটিচাপা দেয়া হয়েছে। পারিবারিক কলহের জেরে আলামিন তার স্ত্রী রিমিকে হত্যা করে মাটিচাপা দিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনার পর থেকেই তিনি পলাতক রয়েছেন।
বাড়ির মালিক মুরাদ হোসেন বলেন, গত ফেব্রুয়ারি মাসে খোকসার বাসিন্দা আলামিন (২৬) এক হাজার টাকা মাসিক চুক্তিতে বাসাটি ভাড়া নেন। ওই বাসায় আলামিন ও তার স্ত্রী রিমি থাকতেন। আলামিন কুষ্টিয়া শহরের মজমপুর গেট এলাকার জাহাঙ্গীর হোটেলের মিষ্টি বানানোর কারিগর হিসাবে কাজ করত। তবে গত এক মাস ধরে ওই বাসায় তাকে কেউ দেখেনি। লাশ উদ্ধারের পর একাধিকবার ফোনে আলামিনের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তাকে পাওয়া যায়নি। কিছুদিন আগে বাসা ভাড়া নেয়ায় প্রতিবেশীরাও তাদের তেমন একটা চিনত না।
কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) নিশিকান্ত বলেন, প্রাথমিকভাবে তারা নিশ্চিত হয়েছেন লাশটি আলামিনের স্ত্রীর। ময়নাতদন্ত শেষে বিষয়টি আরো নিশ্চিত হওয়া যাবে বলে জানান তিনি।

Post a Comment

0 Comments