কুমারখালী আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের সংবাদ সম্মেলন

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী উপজেলার আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র সামছুজ্জামান অরুণ ৬ মার্চ বিকেল ৩ টায় নিজ বাসভবনে সংবাদ সম্মেলন করেন।
সংবাদ সম্মেলনে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সামসুজ্জামান অরুণ বলেন,
শনিবার সকাল ১১ টার সময় আবুল হোসেন তরুণ অডিটোরিয়ামে ।কুমারখালী উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্যদের কার্যনির্বাহি  কমিটির আলোচনা সভা হাওয়ার জন্য দিন নির্ধারিত ছিল।
আলোচনা সভা অনুষ্ঠানের শুরুতেই দলের নৌকার বিপক্ষে ভোট করবার কারণে উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য জয়লান আবেদিন ও মাজেদ মাষ্টার কে সভা কক্ষ থেকে  বের হয়ে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করা হয়। কারণ তারা উপজেলা আওয়ামীলীগের কেউ নয়।বার বার সভাপতিকে অনুরোধ করার পরও কোনো ব্যবস্থা নেননি।      
কিন্তু কুমারখালী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল মান্নান খান তাদের নিয়ে সভা চালিয়ে যেতে চায়।
এই সময় উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল মান্নান খান কার্যকারী সভা মুলতবী করেন।
এই কার্যকারি সভায় এজেন্ডা ছিল বিভিন্ন জায়গায় শহীদ গোলাম কিবরিয়ার পরিবার সম্পর্কে বিরূপ মন্তব্য ও আব্দুল মান্নান খান বিভিন্ন সময় বক্তিতা কালে (বড় ভাই) কাছে টাকা দিয়ে কেউ স্থানীয় আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পাবেন না ।
আমরা জানতে চাই এই বড় ভাই কে ! কেন বহিষ্কার কর্মীদের দলে সদস্য পথ দেওয়া হয় সাধারণত সম্পাদক কে ছাড়া।
এই ছিল কার্যকারী সভায় উদ্দেশ্য এই সব কথার উত্তর দিতে চাই না আব্দুল মান্নান খান এই জন্য সভা মুলতবী করা হয়েছে। এই সময় সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া-৪ আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ, তিনি বলেন শহীদ গোলাম কিবরিয়ার পরিবার কোন দিন আওয়ামীলীগের বিপক্ষে ছিল না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে দল কে সংগঠিত করতে যে দায়িত্ব দিয়েছেন তারি ধারাবাহিকতায় কুমারখালী - খোকসা উপজেলার আওয়ামীলীগ আজ শক্তিশালী।
দলীয় পদে থেকে মনগড়া কথা বলা থেকে বিরত থাকতে বলেন।
এই বিষয়ে কুমারখালী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি পক্ষে দপ্তর সম্পাদক আশাদুল রহমান আশা, সাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয় ।
কুমারখালী উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য মধ্যে দুই জন সদস্যকে, সাধারণ সম্পাদক সামসুজ্জামান অরুণ চলে যেতে বলাই সভা মুলতবী রাখা হলো।

Post a Comment

0 Comments