হাজার হাজার গ্রাহকের ভালবাসায় সিক্ত হয়ে বিদায় নিলেন ভেড়ামারা পল্লী বিদ্যুতের ডিজিএম মিজানুর রহমান

চেতনায় কুষ্টিয়া প্রতিবেদক ॥ গ্রাহক এবং সাধারন মানুষই ছিল যার সেবার লক্ষ্য। হাজার হাজার গ্রাহকের ভালবাসায় সিক্ত হয়ে বিদায় নিলেন কুষ্টিয়ার ভেড়ামারার প্রিয় মানুষ। সকলের পছন্দের একজন ব্যক্তি পল্লী বিদ্যুতের ডিজিএম এ, বি, এম মিজানুর রহমান। গতকাল সাধারন রিক্সাওয়ালা থেকে শুরু করে উপরের শ্রেণীর সকলেই তার বিদায়ে ব্যথিত হয়েছেন। ইউএনও সোহেল মারুফ তার ফেইসবুক স্ট্যাটাসে তাকে একজন ভাল কর্মকর্তা এবং সর্বোপরি একজন ভাল মানুষ হিসেবে উল্লেখ করেছেন। উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ¦ আক্তারুজ্জামান মিঠু, স্থানীয় ব্যক্তিত্ব ও ভেড়ামারা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি রফিকুল অলম চুন্নু ভাই, জেলা জাসদের সাধারন সম্পাদক আব্দুল আলীম স্বপন ভাই সহ সকল রাজনৈতিক, সামাজিক ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের একই কথা ভেড়ামারা পল্লী বিদ্যুতের সেবার মান পূর্বের যেকোন সময়ের তুলনায় অনেক অনেক গুন ভাল। দালালমুক্ত ও হয়রানীমুক্ত বিদ্যুৎ সংযোগ এবং সেবা পেয়ে তারা বিদায়ী ডিজিএম কে কৃতজ্ঞতা জানান। তার বিদায়ের কথা শুনে পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের কর্মকর্তা/কর্মচারী এবং সাংবাদিক সহ ভোড়ামারা সকল মহলেই শোকের ছায়া নেমে আসে। ডিজিএম জনাব এ, বি, এম মিজানুর রহমান ভোড়ামারা পল্লী বিদ্যুতে যোগদানের সময় ছিল ০৭ আগষ্ট’ ২০১৭ খ্রিঃ তারিখ। এই সাড়ে তিন বছরে ভেড়ামারা বিদ্যুৎ ব্যবস্থায় তার কঠোর পরিশ্রম ও দক্ষ নেতৃত্বের দ্বারা ব্যপক উন্নতি হয়েছে। ভোড়ামারাবাসি এখন আর লোড শেডিং এর যন্ত্রনায় নাই। পল্লী বিদ্যুতের ডিজিএম জনাব এ, বি, এম মিজানুর রহমান তার কর্মকাল অর্থাৎ সাড়ে তিন বছর প্রায় ৬% সিষ্টেম লস কমেছে। তার যোগদানের মাস আগষ্ট’১৭ খ্রিঃ মাসে ভেড়ামারা পল্লী বিদ্যুতের সিষ্টেম লস ছিল ১২.১০% আর তার বিদায় সময় অর্থাৎ জানুয়ারী’২১ মাসে ছিল ৬.৬১%। বকেয়া বিদ্যুৎ বিল আদায় এবং দ্রুত বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদানে ছিল ডিজিএম সাহেবের তৎপরতা। তার বিদায় অনুষ্ঠানে অনেক বক্তাই বলেছে করনাকালীন গত জুনে তিনি কুমারখালী এবং ভেড়ামারা ০২ টি জোনাল অফিসের দায়িত্বে থেকেও উভয় অফিসের বকেয়ার মাস যথাক্রমে .৯৫  এবং ১.০৬ রাখতে সক্ষম হয়েছেন। তার যোগদানের সময় আগষ্ট’১৭ খ্রিঃ মাসে নতুন সংযোগ পেন্ডিং ছিল ২,২২০ টি কিন্তু বিদায়ের দিনে বিদ্যুৎ নতুন সংযোগ পেন্ডিং ছিলনা। তাছাড়াও ভেড়ামারা সাবষ্টেশনের ০৪ টি ফিডার কে ০৮ টি ফিডারে রূপান্তর, ঠাকুর দৌলতপুরে নতুন সাবষ্টেশনে আরো ০৬ টি ফিডার তৈরী করে বিদ্যুৎ ব্যবস্থার যে উন্নতি সাধন করেছেন ভেড়ামারাবাসী তার সুফল দীর্ঘদিন ভোগ করতে পারবে।

 

Post a Comment

0 Comments