নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

চেতনায় কুষ্টিয়া প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে নিজ ঘরের আড়ার সঙ্গে ওড়না পেঁচানো অবস্থায় মরিয়ম (১৮) নামের এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার রাতে পুলিশ মরিয়মের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহত মরিয়ম কুমারখালী উপজেলার শিলাইদহ ইউনিয়নের কল্যানপুর কামারপাড়া এলাকার পারভেজ আলীর স্ত্রী। মরিয়মের শ্বশুরবাড়ির লোকজনের দাবি, পারিবারিক কলোহের জের ধরে তিনি আত্মহত্যা করেছেন। তবে বাবা রুহুল আমিনের অভিযোগ, তার মেয়েকে হত্যা করে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। রুহুল আমিন অভিযোগ করে বলেন, ‘কিছু দিন আগে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় মরিয়ম ও পারভেজের। বিয়ের পর থেকেই তাদের মধ্যে বনিবনা হচ্ছিল না। এ কারণে প্রায়ই মরিয়ম আমার বাড়ি অথবা মির্জাপুরে তার খালার বাড়িতে চলে যেতো।’ স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, চার দিন আগে মরিয়ম স্বামীর বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। বাড়িতে আসছে না বলে তার স্বামী পারভেজ স্ত্রীর খোঁজে শ্বশুরবাড়িতে গিয়ে শ্বশুরকে জিজ্ঞাসা করে, আপনার মেয়ে এসেছে কি না। তখন রুহুল আমিন বলেন, মেয়ে তো আসেনি। তখন তিনি ধারণা করেন তার মেয়ের কোনো সমস্যা হয়েছে। এই সন্দেহে জামাই পারভেজকে ঘরের খুঁটির সঙ্গে বেঁধে রাখেন। ১০ থেকে ১৫ মিনিট পর মরিয়ম বাড়ি আসলে পারভেজকে ছেড়ে দেওয়া হয় এবং ছেলে পক্ষের লোকজনের মধ্যস্থতায় মরিয়মকে পারভেজের হাতে আবার তুলে দেওয়া হয়। মরিয়মের স্বামী ভোররাতে ইটভাটায় কাজে বেরিয়ে যান। সকালে নিজের ঘরে আড়ার সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় মরিয়মকে দেখে পুলিশে খবর দেন বাড়ির লোকজন। কুমারখালী থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মজিবুর রহমান বলেন, মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট অনুযায়ী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Post a Comment

0 Comments