কুমারখালীতেও করোনা টিকা দেয়া হলো


কুমারখালী (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি : সারাদেশে ন্যায় কুমারখালীতেও ৭ ফেব্রæয়ারি থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে করোনার টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে  প্রথম চালানে ১ হাজার১২ টি করোনার টিকা এসেছে। এসব টিকা প্রথম পর্যায়ে সম্মুখ সারির যোদ্ধাদের দেয়া হচ্ছে।

রোববার সকালে উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স করোনা টিকা কার্যক্রম শুভ উদ্বোধন করেন কুষ্টিয়া-৪ আসেন সাংসদ ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ । কুমারখালীতে যাদের দেয়া  হলো করোনা টিকা।

সিনিয়র  নার্স তাসলিমা আক্তার, কে দিয়ে উদ্বোধন করা হয়। কোভিড চিকিৎসায় সরাসরি যুক্ত সরকারি-বেসরকারি স্বাস্থ্যকর্মী, মুক্তিযোদ্ধা, জনপ্রতিনিধি, বিভিন্ন বাহিনীর সদস্য, সরকারি কর্মকর্তা, গণমাধ্যমকর্মী, ধর্মীয় নেতা, প্রবাসী শ্রমিক ও ষাটোর্ধ্ব নাগরিকসহ অন্যান্যদের এই টিকা প্রদান করা হবে।

উপজেলা কমিটির সভাপতি রাজীবুল ইসলাম খান জানান, করোনার টিকার জন্য জনগোষ্ঠীর ও পেশাভিত্তিক তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। এই তালিকা করে  নাম স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।এর মধ্যে উপজেলা সরকারি ৪১ দপ্তরের সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারী রয়েছে।

প,প, স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আকুল উদ্দিন  জানান, টিকা নেয়ার জন্য অনলাইনে সুরক্ষা অ্যাপে নিবন্ধন করতে হবে। টিকা নেয়ার পর কারো কারো বিভিন্ন ধরনের শারীরিক সমস্যা দেখা দিতে পারে। যেমন- টিকা প্রয়োগের জায়গায় ফুলে যাওয়া, সামান্য জ্বর হওয়া, বমি বমি ভাব, মাথা ও শরীর ব্যাথা। এ লক্ষণগুলো সাধারণত দুই-একদিন থাকতে পারে। ভ্যাকসিন নেয়ার পর টিকাকেন্দ্রে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করতে হবে।

ভ্যাকসিন নেয়ার পরেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্বাভাবিক জীবনযাপন করা যাবে। প্রথম ডোজের আট সপ্তাহ পর দ্বিতীয় ডোজের টিকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এই সময় উপস্থিত ছিলেন- কুষ্টিয়া-৪ আসনের সাংসদ ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ, আব্দুল মান্নান খান চেয়ারম্যান উপজেলা পরিষদ কুমারখালী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাজীবুল ইসলাম খান, পৌর মেয়র  শামসুজ্জামান অরুন, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আকুল উদ্দিন সহ প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা।

Post a Comment

0 Comments