চাচাতো ভাইয়ের স্ত্রীর পরকীয়ার প্রতিবাদ করায় ছেলেকে খুন

চেতনায় কুষ্টিয়া প্রতিবেদক ॥ নিখোঁজের তিনদিন পর পুকুর থেকে আরাফাত রহমান নামে ৯ বছরের এক শিশুর লাশ উদ্ধারের ঘটনায় মামলা হয়েছে। শনিবার রাতে নিহত আরাফাতের মা রিনজু বেগম বাদী হয়ে বন্দর থানায় মামলা দায়ের করেন।
বন্দরের লাউসার এলাকার ইসলাম মিয়ার ছেলে রিপন (২৬) ও তোফাজ্জল হোসেনের ছেলে রাব্বিউল ওরফে রাব্বির (২৩) নাম উল্লেখ করে মামলাটি দায়ের করা হয়। মামলায় অজ্ঞাত আরো ৫-৬ জনকে আসামি করা হয়েছে।
এ ঘটনায় পুলিশ লাউসার এলাকার তোফাজ্জল হোসেনের ছেলে রাব্বিকে গ্রেফতার করেছে। রবিবার তাকে ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ।
গত শুক্রবার নারায়নগঞ্জের বন্দর উপজেলার মদনপুর ইউনিয়নের লাউসার এলাকার একটি পুকুর থেকে শিশু আরাফাতের লাশ উদ্ধার করা হয়। সে ওই এলাকার বাসিন্দা এবং মদনপুর ইউপির সাবেক সদস্য (মেম্বর) রফিকুল ইসলাম ওরফে মনা মেম্বরের ছেলে।
নিহতের মা রিনজু বেগম মামলার এজাহারে উল্লেখ করেন, তার চাচাতো দেবর লাউসার এলাকার জহিরুল ইসলাম (৩০) জীবিকার তাগিদে বর্তমানে কুয়েতে অবস্থান করছেন। তার অবর্তমানে স্বামী রফিকুল ইসলাম (মনা মেম্বর) পরিবারটিকে দেখভাল করছেন।
ইতিমধ্যে দেবরের স্ত্রী লাউসার এলাকার ইসলাম মিয়ার ছেলে রিপনের সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। বিষয়টি জানাজানি হলে মনা মেম্বর দুজনকে শাসন করেন। দুই মাস আগে রিপন চাচাতো দেবরের স্ত্রীকে নিয়ে কক্সবাজার ঘুরে আসে। মনা মেম্বর এর প্রতিবাদ করলে বিরোধের সৃষ্টি হয়। তারা মনা মেম্বরকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়।
গত ১৫ ডিসেম্বর রাত সাড়ে ৮টার দিকে রিপন ও তার বন্ধু রাব্বি ব্যাডমিন্টন খেলার কথা বলে আরাফাতকে ডেকে নিয়ে যায়। এরপর ১৮ ডিসেম্বর বাড়ির পাশের একটি পুকুরে আরাফাতের রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
এ ব্যাপারে বন্দর থানার ওসি ফখরুদ্দীন ভুইয়া জানান, নিহত আরাফাতের মা রিনজু বেগম বাদী হয়ে দুজনের নাম উল্লেখ করে মামলা করেছেন। মামলার দুই নম্বর আসামি রাব্বিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অপর আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

Post a Comment

0 Comments