বাসের ভাড়া দ্বিগুণ নিলেও মানছে না সামাজিক দূরত্ব

চেতনায় কুষ্টিয়া প্রতিবেদক \ করোনার সংক্রমণ রোধে প্রত্যেক বাস ও মিনিবাসে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলাচলের নির্দেশ দিয়েছে সরকার। কিন্তু কুষ্টিয়ায় বেশিরভাগ বাসে এই নির্দেশনা মানা হচ্ছে না। তবে ৬০ শতাংশ ভাড়া বৃদ্ধির বোঝা যাত্রীদের ঠিকই টানতে হচ্ছে।
কুষ্টিয়া-মেহেরপুর, কুষ্টিয়া-দৌলতপুর সড়কে চলাচলরত প্রতিটি বাসেই অতিরিক্ত যাত্রী তোলা হচ্ছে। এতে করে বাড়ছে করোনায় আক্রান্তের ঝুঁকি।
যাত্রীরাও অসচেতনভাবে বাসগুলোতে উঠে পড়ছে। ফলে প্রতিদিন করোনা রোগীর সংখ্যা বাড়ছে।
কুষ্টিয়া চৌড়হাস টার্মিনাল ঘুরে দেখা যায়, গাড়ি চালক ও হেলপাররা স্বাস্থ্যবিধি মানছে না। তাদের মুখে নেই মাস্ক, হাতে নেই গ্লাভস, গাড়ির সিটগুলো অপরিচ্ছন্ন রয়েছে। এছাড়া গণপরিবহনে সামাজিক দূরত্ব মানা হচ্ছে না।
যাত্রীদের অভিযোগ, অতিরিক্ত ভাড়া নিচ্ছে বাস চালকরা। কিন্তু নিয়ম অনুযায়ী দুই সিটে একজন করে বসবে তা মানা হচ্ছে না। অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে বাসগুলো চলছে।
আব্দুল মজিদ নামে এক যাত্রী জানান, আগে কুষ্টিয়া থেকে মিরপুরের ভাড়া ছিল ২০ টাকা। কিন্তু এখন ৪০ টাকা দিয়ে যেতে হচ্ছে। অথচ নিয়ম অনুযায়ী প্রতি দুই সিটে একজন করে বসার কথা থাকলেও তা মানা হচ্ছে না।
কুষ্টিয়ার সচেতন মহল জানান, জেলার সব রোডে ব্যাটাটি চালিত ইজিবাইক, অটোরিকশা, অবাধে যাতায়াত করছে। বাসসহ ওই সব যানবাহনগুলোতে ঠাসাঠাসি করে যাতায়াত করছে সাধারণ মানুষ। অথচ করোনা প্রতিরোধে একজন মানুষের থেকে আরেকজন মানুষের দূরত্ব কমপক্ষে ৩ ফিট থাকার জন্য বলা হচ্ছে। কিন্তু তা মানা হচ্ছে না। ফলে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার শঙ্কা রয়েছে।
কুষ্টিয়া বিআরটিএ পরিদর্শক ওমর ফারুক বলেন, ‘বাসগুলোতে সামাজিক দূরত্ব মানা হচ্ছে না বলে অভিযোগ পেয়েছি। জেলা প্রশাসককে বিষয়টি জানিয়েছি। শিগগিরই অভিযান পরিচালনা করা হবে।’

Post a Comment

0 Comments