জনপ্রিয় কাউন্সিলর ৩বারের নির্বাচিত সবার প্রিয় খসরুজ্জামান ফারুক ৭নং ওয়ার্ডবাসীর হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছে


চেতনায় কুষ্টিয়া প্রতিবেদক \ কুষ্টিয়া ভেড়ামারা পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র-২ খসরুজ্জামান ফারুক পর পর ৩বার নির্বাচিত সফল কাউন্সিলর। তার ৩ বার বিজয়ের পিছনে কাজ করেছে তার সততা, ন্যায় ও নিষ্ঠাপরায়নতা, মিষ্টভাসী ও সহজ সরল হাসি মুখ। তার ওয়ার্ডসহ অত্র এলাকার যে কোন প্রয়োজনে কারও মাধ্যমে তার কাছে সংবাদ পৌছালেই সে সেখানে ছুটে যান এবং বিপদগ্রস্থ মানুষের পাশে দাঁড়ান। পৌরসভার বরাদ্দকৃত সামগ্রী নিষ্ঠার সাথে প্রকৃত ভুক্তভুগীদের কাছে পৌছে দেন। তার ক্লীন ইমেজের কারনেই মানুষের ভালোবাসা ও সমর্থন পেয়েছেন বার বার।

বিতর্কমুক্ত থাকতে পারায় দিন দিন আরও বৃদ্ধি পেয়েছে তার জনপ্রিয়তা। তার বিকল্প এখনও ঐ ওয়ার্ডে কেউ তৈরী হয়নি। তিনি একাধারে ৬জুন ২০০৪, ২৪শে ফেব্রæয়ারী ২০১১ ও ৮ই ফেব্রæয়ারী ২০১৬ইং তারিখে সাধারন মানুষ ও ভোটারের ভালোবাসা ও সমর্থন নিয়ে পর পর ৩ বার নির্বাচনে জয় লাভ করেন এবং সবার সমর্থন পেয়ে প্যানেল মেয়র-২ হিসাবে নির্বাচিত হন। বর্তমানে তার গ্রহযোগ্যতা সবার শীর্ষে। পৌরসভার মধ্যে তিনি একজন প্রভাবশালী কাউন্সিলর। তার এই অর্জনে কাজ করেছে তার সততা। প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়ে খোঁজ-খবর নেন। এই কারনেই তাকে সাধারন মানুষ এতোটাই ভালোবাসে। ৩বার নির্বাচিত হলেও তার মধ্যে নেই কোন দাম্ভিকতা। পৌরসভাবাসীর কাছে তিনি ভালো ছেলে হিসাবে পরিচিতি।

এদিকে করোনাকালে ভালো ছেলে কাউন্সিলর খসরুজ্জামান ফারুক অসহায় ও দুঃস্থ ও বেকার হয়ে যাওয়া মানুষের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী ও সহযোগীতা সুষ্ঠ ভাবে বন্টন করেছেন। যা এক অনন্ত দৃষ্টান্ত। তিনি অপ্রকাশ্যে নিজের সাধ্যমত ব্যক্তিগত সহযোগীতাও অসহায়দের কাছে পৌছে দিয়েছেন। তিনি বয়সে এখনও তরুন, এই কারনেই এখনও অনেক সময় পর্যন্ত ৭নং ওয়ার্ডবাসী তার সেবা পাবেন। এখনও তার দেওয়ার অনেক কিছুই রয়েছে। ৭নং ওয়ার্ডবাসীর ভালোবাসার সিক্ত হওয়া এই মানুষটি অমায়িক ব্যবহার, আচার-আচরণ দ্বারা খুব সহজে সবাইকে আপন করে নেওয়ার গুণ তার মধ্যে রয়েছে।

পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র-২ খসরুজ্জামান ফারুক বলেন, নিজের দায়িত্ব ও কর্তব্য সৎ ও নিষ্ঠার সাথে পালন করার চেষ্টা করেছি। যতটুকু ক্ষমতা সাধ্য মত মানুষের মাঝে বিলিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছি। আমি মানুষের সেবক হিসাবে দীর্ঘ ১৬বৎসর যাবৎ সেবা করে যাচ্ছি। আগামীতেও মানুষের ভালোবাসা যতদিন আমার প্রতি থাকবে, আমি ততোদিন মানুষের সেবা ও খেদমত করে যাবো। কাজের মাধ্যমেই নিজের নামটাকে মানুষের মাঝে অনন্তকাল ধরে রাখতে চায়।

Post a Comment

0 Comments