কুষ্টিয়ার খলিসাকুন্ডি পুলিশ ক্যাম্পে ৬সদস্য করোনায় আক্রান্ত \ ক্যাম্প লকডাউন

চেতনায় কুষ্টিয়া প্রতিবেদক \ কুষ্টিয়ায় ক্যাম্পের আইসিসহ ছয় পুলিশ সদস্য করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় একটি পুলিশ ক্যাম্প লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। সোমবার (৬ জুলাই) রাত ৯টার সময় জেলা সিভিল সার্জন সুত্রে জানা যায় পাঁচ পুলিশ সদস্যের করোনা শনাক্ত হওয়ায় দৌলতপুর উপজেলার খলিসাকুন্ডি পুলিশ ক্যাম্প লকডাউন ঘোষণা করা হয়। এর দু’দিন আগে ওই ক্যাম্পে আরও এক পুলিশ সদস্যের করোনা শনাক্ত হয়।
দৌলতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম আরিফুর রহমান ওই পুলিশ ক্যাম্পটি লকডাউন হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। ওই পুলিশ ক্যাম্পে মোট ১৩ জন পুলিশ সদস্য কর্মরত রয়েছেন। এক জন ছুটিতে থাকায় ক্যাম্পটিতে ১২ জন ডিউটি করছিল। এর মধ্যে দু’দিন আগে কুষ্টিয়া পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষায় এক পুলিশ সদস্যের করোনা শনাক্ত হয়। আক্রান্ত ওই পুলিশ সদস্য কুষ্টিয়া পুলিশ লাইনে হোম আইসোলেশনে রয়েছেন। ওই পুলিশ সদস্যের করোনা শনাক্ত হওয়ায় রোববার ওই ক্যাম্পের অন্য সকল সদস্যের করোনা পরীক্ষা করা হয়। সোমবার রাতে কুষ্টিয়া পিসিআর ল্যাবের পরীক্ষায় জানা যায় ক্যাম্পের আইসি এএসআই খোরশেদ আলমসহ আরও পাঁচ পুলিশ সদস্যের করোনা শনাক্ত হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পরপরই রাতে ওই পুলিশ ক্যাম্প লকডাউন করে সকল সদস্যদের কুষ্টিয়া পুলিশ লাইনে আনা হয়েছে।।
কুষ্টিয়া জেলায় সোমবার নতুন করে ৪৪ জন করোনা আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন। এছাড়া কুমারখালীর ১টি ও সদরের ১টি নমুনার রিপোর্ট ফলোআপ পজিটিভ। নতুন আক্রান্তের মধ্যে কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুরে ৭ জন, সদরে ২৯ জন, কুমারখালীতে ৫ জন এবং মিরপুর উপজেলায় ৩ জন। এ নিয়ে কুষ্টিয়া জেলায় বহিরাগত বাদে এখন পর্যন্ত ৭৮৯ জন কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হলো। এর মধ্যে দৌলতপুরে ১০৫, ভেড়ামারায় ৮৭, মিরপুরে ৪৭, কুষ্টিয়া সদরে ৪২৩, কুমারখালীতে ১০০ এবং খোকসা উপজেলায় ২৭ জন।
আক্রান্তদের মধ্যে পুরুষ রোগী ৫৭৯ এবং নারী ২১০ জন। সুস্থ হয়ে ছাড়া পেয়েছেন মোট ৩৬৯ জন। বর্তমানে হোম আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন ৩৭২ জন এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৩৪ জন। জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতদের মধ্যে পুরুষ ১৩ জন এবং নারী রোগী এক জন।

Post a Comment

0 Comments