ভেড়ামারায় ঘরে থাকা মানুষের বাড়ীতে গিয়ে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা দিচ্ছে মাহমুদা ক্লিনিক

চেতনায় কুষ্টিয়া প্রতিবেদক \ কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় করোনার কারনে ঘরে থাকা অসুস্থ মানুষের বাড়ীতে গিয়ে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা পৌঁছে দিচ্ছে মাহমুদা ক্লিনিক। রবিবার থেকে ব্যতিক্রমধর্মী এ ভ্রাম্যমাণ চিকিৎসা সেবা কাযক্রম শুরু করেছে ক্লিনিকটি।
ভেড়ামারা উপজেলা পরিষদ চত্বরে ‘‘আমার আঙিনায় গামা’র ক্লিনিক” শীর্ষক ফ্রি ভ্রাম্যমাণ ক্লিনিকের আনুষ্ঠানিক যাত্রার শুরুতে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আক্তারুজ্জামান মিঠু, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সোহেল মারুফ, প্রেসক্লাবের সভাপতি প্রভাষক জাহাঙ্গীর হোসেন জুয়েল ও সাধারণ সম্পাদক আরিফুজ্জামান লিপটন।
জানা গেছে, মাহমুদা ক্লিনিকের মালিক শাহেদ আহমেদ গামার নেতৃত্বে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক, মেডিকেল এসিসটেন্ট ও অভিজ্ঞ নার্স দ্বারা গঠিত ফ্রি ভ্রাম্যমাণ ক্লিনিকটি ছুটে চলেছে এক গ্রাম থেকে আরেক গ্রাম। ঘরে থাকা অসুস্থ্য মানুষকে ডেকে নিয়ে প্রাথমিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর তাদেরকে দেয়া হচ্ছে বিনামূল্যে চিকিৎসা ও ওষুধ। কখনো আবার ফোন পেয়ে এম্বুলেন্সযোগে অসুস্থ রোগীর বাড়ীতে দ্রুত হাজির হচ্ছেন ভ্রাম্যমাণ ক্লিনিকের সদস্যরা।
প্রথম দিনে ভেড়ামারার মোকারিমপুর ও গোলাপনগর গ্রামের প্রায় দেড় শতাধিক রোগীকে ভ্রাম্যমান এক্লিনিক থেকে চিকিৎসা সেবা দেয়া হয়। তাদের মধ্যে অধিকাংশ ছিল শিশু, গর্ভবতী নারী ও বয়স্ক ব্যক্তি।
চিকিৎসা সেবা প্রদান প্রসঙ্গে ডাঃ নুরুল ইসলাম বলেন, সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে প্রত্যেকটি রোগীকে সাবান পানি দিয়ে হাত ধোয়ানোর পর থার্মাল স্ক্যানার দিয়ে পরীক্ষা করা হয়েছে। প্রাথমিক পরীক্ষা করে রোগীদেরকে ব্যবস্থাপত্র ও প্রয়োজনীয় ওষধ দেয়া হয়েছে। এছাড়াও করোনা প্রতিরোধে করনীয় বিষয়ে প্রত্যেককে পরামর্শ দেয়া হয়েছে।
শাহেদ আহমেদ গামা জানান, ‘মানবিক, নৈতিক, সামাজিক দায়িত্ববোধ থেকেই আমরা মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি’। করোনার কারণে পরিবহনের অভাবে অসুস্থ মানুষ চিকিৎসার জন্য প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে নির্বিঘেœ শহরে আসতে পারছেন না। আবার অনেকের ওষধ কেনারও সামর্থ্য নেই। এসব বিষয় বিবেচনা করে আমরা এগিয়ে এসেছি।



Post a Comment

0 Comments