কুমারখালী পৌর ৯ নং ওয়ার্ডে স্বল্প আয়ের মানুষ গুলো র' দেখার কেউ নেই।

মোশারফ হোসেন কুমারখালী কুমারখালী উপজেলার পৌর নং ওয়ার্ডে স্বল্প আয়ের মানুষের সাহায্যে এগিয়ে আসুন সবাই। বৈশ্বিক করোনা মহামারীর সময় অসহায় এই মানুষের পাশে কাওকে দেখা যাচ্ছে না।
করোনাভাইরাস বিস্তার রোধে সারা দেশে চলছে অঘোষিত লকডাউন। সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। দোকানপাট, রাস্তাঘাট সব কিছুই বন্ধ। নেই কাজের কোনো উৎস। করোনা আতঙ্কে কার্যতই মানুষ আজ গৃহবন্দি। এলাকায় আনিসুল রহমান জানান আমি ঢাকায় রিক্সা চালায় কোরানো কারনে বাড়িতে চলে আসি এখন ঘরে চাল নেই কেউ কোন খোঁজ খবর নেয় নি। নং ওয়ার্ডে বাসিন্দা আলম জানান আমরা ঘরে খাবার নেই ,কি করে খাব দোকান খুলতে পারছিনা। কুলসুম জানান আমাদের এখানে কেউ আজ পর্যন্ত কোন খোঁজ খবর নিতে কেউ আসেনি, আমাদের কাজ নেই পেটে খাবার নেই কি করে যে সংসার চলছে খেয়ে না খেয়ে, কোন সাহায্য আমরা পারছিনা। ভ্যান চালক বদর  জানান পরিস্থিতিতে রুজি-রোজগার করতে না পেরে খেটে খাওয়া দিনমজুররা বাড়িতে আজ খাদ্য সংকটে দেখা দিয়েছে এই   অসহায় মানুষ গুলো  মানবেতর জীবনযাপন করছেন। করোনায় সৃষ্ট উদ্ভূত পরিস্থিতিতে দুর্দশাগ্রস্ত পরিবারের পাশে খাদ্যদ্রব্য, নগদ অর্থসহ জরুরি ত্রাণসামগ্রী নিয়ে সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসতে আহ্বান জানিয়েছেন। স্থানীয় প্রশাসন, সমাজের বিত্তবান, জনপ্রতিনিধি, সামাজিক সেবামূলক সংগঠন এবং বিশেষভাবে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দকে যার যার অবস্থানে থেকে সাধ্যমতো ত্রাণসামগ্রী নিয়ে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন এলাকাবাসী  ।। করোনাভাইরাসের দুর্যোগপূর্ণ পরিস্থিতিতে ব্যক্তিগত বা সম্মিলিত উদ্যোগে দুস্থ এবং অসহায়দের সাহায্যে এগিয়ে আসুন এখনি। সমাজের সচেতন মহল মনে করেন এই অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে বিত্তশালী ব্যক্তিদের নৈতিক দায়িত্ব কর্তব্য।  গরিব-দুঃখীদের মাঝে সাহায্যে প্রদান করতে হবে। ছাড়া প্রত্যেককেই অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে এবং সামর্থ্যনুযায়ী ত্রাণ বিতরণ করলে তথা অসহায়দের সাহায্য-সহযোগিতা করলে এই অসহায় মানুষ গুলো বেঁচে থাকাতে পারবে। কুমারখালী পৌর নং ওয়ার্ডে   অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর বিষয়টি সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি

Post a Comment

0 Comments