কুষ্টিয়ায় সেই শিশুটি সুস্থ্য আছে \ বাড়ি যেতে পারবে না

চেতনায় কুষ্টিয়া প্রতিবেদক  \  করোনাভাইরাসের সংক্রামণ সন্দেহে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশনে রাখা ৭ মাসের শিশু মহম্মদ এখন সম্পূর্ণ সুস্থ্য। তবে করোনা নমুনা সংগ্রহের রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত তাকে ছাড়পত্র দিতে পারছেন না বলে জানিয়েছেন কুষ্টিয়ার সিভিল সার্জন ডা. এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম। শনিবার (২৮ মার্চ) দুপুর ১২টায় এ তথ্য জানান সিভিল সার্জন।
সিভিল সার্জন জানান, কুষ্টিয়া শহরের কালিশংকরপুর এলাকার বাসিন্দা সিঙ্গাপুর ফেরত তহিদুল ইসলাম হোম কোয়ারেন্টাইন মেনে চলছিলেন। এর মধ্যে তার ৭ মাসের শিশু মহম্মদ গত ২৩ মার্চ জ্বর, ঠান্ডা ও কাশিতে আক্রান্ত হয়ে কুষ্টিয়া জেনারেল হাপাতালে ভর্তি হন। তাকে নিউমোনিয়ার চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছিল। যেহেতু শিশুটির বাবা প্রবাসে ছিলেন তাই সন্দেহতীতভাবে আমরা বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) তাকে হাসপাতালের আইসোলেশনে রাখি। পরে শিশুটি করোনা পজেটিভ কিনা এটা পরীক্ষার জন্য আইইডিসিআর'কে জানানো হয়।
শুক্রবার (২৭ মার্চ) দুপুরে আইইডিসিআর এর দুইজন নমুনা সংগ্রহকারী কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশনে থাকা শিশুটির করোনা রয়েছে কিনা তা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করে নিয়ে গেছেন। সেইসাথে শিশুটির পুরো পরিবারকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা করা হয়েছে।
বর্তমানে শিশুটি সম্পূর্ণ সুস্থ্য রয়েছেন বলে উল্লেখ করে সিভিল সার্জন বলেন, শিশুটি বর্তমানে আইসোলেশনেই রয়েছে। তবে আমাদের অভিজ্ঞতা মতে শিশুটি সম্পূর্ণ সুস্থ্য রয়েছে। তবে যেহেতু করোনা পজেটিভ কি-না সে সন্দেহে নমুনা পাঠানো হয়েছে, সেহেতু সুস্থ্য হওয়া সত্বেও রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত আমরা শিশুটিকে ছাড়পত্র দিতে পারছি না। কারণ যদি পজেটিভ হয়, তাহলে আবারো কোয়ারেন্টাইন করতে হবে। তবে রিপোর্ট আসতে এখনো দুই-একদিন সময় লাগতে পারেও বলে জানান তিনি।
এদিকে এখন পর্যন্ত জেলায় করোনা সন্দেহে বা করোনার উপসর্গ রয়েছে এমন কোন রোগী কোন হাসপাতালে আসেনি। জেলায় বর্তমানে বিদেশফেরত ২৮০ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

Post a Comment

0 Comments