কুষ্টিয়ায় জেএমবি সদস্যের আত্মসমর্পণ ॥ ৫ লাখ টাকার অনুদান প্রদান

চেতনায় কুষ্টিয়া প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়ায় সালাউদ্দিন আহম্মেদ ওরফে সুজন নামে এক জেএমবি সদস্য র‌্যাবের কাছে আত্মসমর্পণ করেছেন। জঙ্গি তৎপরতা ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসায় র‌্যাব তাকে এ সময় ৫ লাখ টাকার অনুদান প্রদান করেন।
বৃহস্পতিবার কুষ্টিয়া র‌্যাব-১২ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে আত্মসমর্পণ করা ওই জেএমবি সদস্যকে হাজির করা হয়। সালাউদ্দিন রাজশাহীর বাঘা উপজেলার দাদপুর গ্রামের আব্দুল হালিম মোল্লার ছেলে। কুষ্টিয়ার খাজানগর এলাকায় তার শ্বশুর বাড়ি। কুষ্টিয়ায় থেকে তিনি কার্যক্রম পরিচালনা করতেন।
সালাউদ্দিন জানান. তিনি বেশ কিছুদিন ধরে জেএমবির সক্রিয় সদস্য হিসেবে ছিলেন। কুষ্টিয়া সদর উপজেলার খাজানগর এলাকার একটি চালকলে তিনি ম্যানেজারের চাকুরি করতেন। ছোট বেলা থেকেই তিনি কিছূটা গোড়ামীভাবে চলাফেরা করতেন। এক সময় জেএমবিতে সক্রিয় হয়ে ওঠেন। এখন তিনি তার ভুল বুঝতে পেরেছেন। এছাড়া পরিবারের সদসস্যরাও তাকে ভালো পথে ফিরে আসার জন্য বুঝিয়েছেন। এ কারণে তিনি অন্ধকার জগৎ থেকে আলোর পথে ফিরে আসতে চান।
সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব-১২ এর অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি শাহাবুদ্দিন খান বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন। তিনি এ সময় বলেন. ইসলাম কখনও জঙ্গীবাদ সমর্থন করে না। কিছু বিপথগামী মানুষ কম বয়সীদের ধর্মের অপব্যাখ্যা দিয়ে তাদের জঙ্গীবাদে অনুপ্রাণীত করছে। তিনি এ অপতৎপরতার সাথে জড়িতদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার আহ্বান জানান। পরে এই র‌্যাব কর্মকর্তা সালাউদ্দিনের হাতে ৫ লাখ টাকার চেক তুলে দেন। র‌্যাবের এ কর্মকর্তা জানান সুজন সক্রিয় সদস্য হলেও সরাসরি কোন অপরাধের সাথে জড়িত ছিল না। তার বিরুদ্ধে কোন নাশকতার সাথে জড়িত থাকার কোন প্রমান মেলেনি। তবে নানা ভাবে তিনি জেএমবিকে সহযোগিতা করে আসছিলেন।
সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে র‌্যাব-১২ কুষ্টিয়া ক্যাম্পের কমান্ডিং অফিসার মোসাদ্দেক ইবনে মুজিব ছাড়াও উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

Post a Comment

0 Comments