ভেড়ামারা থানা চত্বরে নবনির্মিত মুক্তাঙ্গন উদ্বোধন করেন এসপি প্রলয় চিসিম

চেতনায় কুষ্টিয়া প্রতিবেদক ॥ অপসংস্কৃতির দিকে না ঝুঁকে বাঙালীর নিজস্ব সংস্কৃতিকে চিরায়ত ঐতিহ্য হিসেবে লালন  ও এদেশের ফুটবলসহ অন্যান্য খেলাধুলায় প্রয়োজনীয় উৎসাহ ও পৃষ্ঠপোষকতা প্রদানের মাধ্যমে সংস্কৃতি চর্চা ও ক্রীড়াঙ্গনে যুগান্তকারী পদক্ষেপ গ্রহণ করে দেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে হবে।
বৃস্পতিবার কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা থানা চত্বরে নবনির্মিত মুক্তাঙ্গন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কুষ্টিয়া জেলার সুপার প্রলয় চিসিম উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। ভেড়ামারা থানার অফিসার ইনচার্জ নূর হোসেন খন্দকারের সভাপতিত্বে এ উপলক্ষে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ভেড়ামারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার শান্তি মনি চাকমা, ভেড়ামারা পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আ‘লীগের সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব শামীমূল ইসলাম ছানা, কেন্দ্রীয় জাসদের সাংগঠনিক সম্পাদক ও কুষ্টিয়া জেলা জাসদের সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব আব্দুল আলীম স্বপন, উপজেলা আ‘লীগের সভাপতি আলহাজ্ব আক্তারুজ্জামান মিঠু, মুক্তাঙ্গন ও স্পন্সর মনি গ্রুপ অব ইন্ডাষ্ট্রিজ এর চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলাম মনি,অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জয়নুল আবেদীন, অতিরিক্তি পুলিশ সুপার সাখাওয়াত হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার র‌্যাব সোহেল রেজা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার  পিবিআই ফারুক হোসেন, , ভেড়ামারা সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পদে সদ্য পদোন্নতি প্রাপ্ত) মোহাম্মদ কামরুল হাসান, এসি ল্যান্ড (ভেড়ামারা) শিহাব রায়হান, ভেড়ামারা প্রেস ক্লাবের সভাপতি প্রভাষক জাহাঙ্গীর হোসেন জুয়েল, ওসি জিয়াউর রহমান, শফিকুল ইসলাম, কাজী জালাল উদ্দিন আহাম্মেদ, শাহাবুদ্দিন চৌধুরী, নাজমূল হুদা, মোল্লা খবির আহাম্মেদ, চাঁদগ্রাম ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল হাফিজ তপন, বাহাদুরপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আশিকুর রহমান ছবি, ভেড়ামারা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আতিকুর রহমান, কুষ্টিয়া পিবিআই পরিদর্শক শহীদুল্লাহ, রেল বাজার বনিক সমিতির সাধারন সম্পাদক আবু দাউদ,  ভেড়ামারা থানার সেকেন্ড অফিসার রোকনুজ্জামান রিপন, এস আই মাসুম বিল্লাহ ও মঞ্জুর আলম খোকন প্রমূখ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন মনোয়ার হোসেন মারুফ।
পুলিশ সুপার প্রলয় চিসিম আরো বলেন,জঙ্গি, সন্ত্রাস ও মাদকসহ সামাজিক অপরাধ ও অনাচার রোধে কমিউিনিটি পুলিশিং ফোরামকে আরো সক্রিয় করার উপর গুরুত্ব আরোপ করেন। তিনি এসকল সমস্যা থেকে এলাকাবাসীকে পরিত্রাণ দিতে সর্বদা পুলিশ বাহিনীকে সহযোগিতা প্রদানের জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান। নির্দোষ আমোদÑপ্রমোদ হিসেবে ক্রিড়া ও সাংস্কৃতিক চর্চ্চা ও উন্নয়ন  দেশের শান্তি, উন্নয়ন ও স্থিতিশীলতা রক্ষায় যুগন্তকারী অবদান রাখতে পারে। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে বাংলার সাংস্কৃতিক কর্মী ও স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের তাৎপর্যময় ভূমিকা ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লেখা আছে। প্রলয় চিসিম তার বক্তব্যে মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ রুখতে বাংলার শাশ্বত সংস্কৃতি ও চিরায়ত ঐতিহ্যকে সমুন্নত রাখার পাশাপাশি ক্রিড়া ক্ষেত্রকে সমৃদ্ধ করার প্রয়োজনীয়তার উপরে গুরুত্ব আরোপ করেন।

Post a Comment

0 Comments