ভেড়ামারা পাইলট মাধ্যামিক বালিকা বিদ্যালয়ে জঙ্গী বিরোধী সমাবেশে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এমপি


জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদ কেন্দ্রীয় কমিটি’র সভাপতি, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এমপি বলেন, খালেদা জিয়া ও বিএনপি যতই বিভ্রান্তির চেষ্টা করুক না কেন যুদ্ধাপরাধীদের মত জঙ্গীদের ও বাঁচাতে পারবে না। জঙ্গী পরিচয় এবং জঙ্গী দমনের অভিযোেগের পদ্ধতি কৌশল নিয়ে অহেতুক বিভ্রান্তি তৈরিীর অপচেষ্টার কি উদ্দেশ্য তা দেশবাসী বোঝেন।
খালেদা জিয়া ও বিএনপি যতই বিভ্রান্তির জন্ম দিক নাকেন যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বন্ধ করতে পারেনী। জঙ্গী দমনের অভিযান ও আটকাতে পারবে না। জঙ্গীরা বঙ্গবন্ধুর খুনিদের মতই আতœস্বীকৃতি খুনি। পরিচয় নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরী কওে কোন লাভ নাই। বুধবার দুপুর ১ টার সময় কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা পাইলট মাধ্যামিক বালিকা বিদ্যালয়ের সংলগ্ন মাঠে ছাত্রী, অভিভাবক, শিক্ষক, শিক্ষিকাসহ গন মানুষের মাঝে জঙ্গীবাদ বিরোধী সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসাবে একথা বলেন। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন, ভেড়ামারা পাইলট মাধ্যামিক বালিকা বিদ্যালয়ের সভাপতি ও  কেন্দ্রীয় নারী জোটের আহ্বায়ক আফরোজা হক রিনা। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক সৈয়দ বেলাল হোসেন, পুলিশ সুপার প্রলয় চিসিম, ভেড়ামারা পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব আব্দুল শামিমুল ইসলাম ছানা, ভেড়ামারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শান্তি মনি চাকমা, কেন্দ্রীয় জাসদের সাংগঠনিক সম্পাদক ও কুষ্টিয়া জেলা জাসদের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আলীম স্বপন. জেলা সভাপতি আলহাজ্ব মহাসিন আলী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জয়নাল আবেদীন, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার কামরুল হাসান, ভেড়ামারা মাধ্যামিক শিক্ষা অফিসার সর্দ্দার মোহাম্মদ আবু সালেক, ভেড়ামারা প্রেস ক্লাবের সভাপতি ও সাপ্তাহিক চেতনায় কুষ্টিয়ার প্রকাশক ও সম্পাদক প্রভাষক জাহাঙ্গীর হোসেন জুয়েল,ভেড়ামারা উপজেলা জাসদেও সভাপতি এমদাদুল ইসলাম আতা, সাধারন সম্পাদক এস এম আনছার আলী, জেলা জাসদের জসসংযোগ বিষয়ক সম্পাদক নবির উদ্দিন, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক বশির উদ্দিন বাচ্চু, ভেড়ামারা পাইলট মাধ্যামিক বালিকা বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সদস্য বদরুজ্জামান বাদল, আয়ুব আলী, শাহীনা আক্তার, ভেড়ামারা পাইলট মাধ্যামিক বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক হোসনে আরা পারভীন, সহকারী শিক্ষক শামছুন্নাহার, আবু সুফিয়ান, জামারুল ইসলাম, এন এম জাহাঙ্গীর, আঃ রশিদ, নাছরিন পারভীন, নাছরিন নেছা, তৌহিদুল ইসলাম, জগলুর কবীর, সেরিনা আক্তার, আব্দুর হক, হাফিজুর রহমান, মোশারফ হোসেন প্রমুখ।
তথ্যমন্ত্রী ও জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু আরো বলেন, দেশে এখন জঙ্গী বিরোধী যে যুদ্ধ চলছে, সেই যুদ্ধে জঙ্গী এবং তাদের দোসর ছাড়া সরকার, প্রশাসন এবং জনগনের মধ্যে একটা ব্যাপক ঐক্য হয়েছে। জঙ্গীরা ছাড়া সারাদেশ এখন এক কাতারে। এর ভেতরেও বিএনপি এবং বেগম খালেদা জিয়া বিভ্রান্তিকর বক্তব্য দিচ্ছেন। তারা জঙ্গীর পরিচয় এবং দমনের কৌশল-পদ্ধতি নিয়ে যতই বিভ্রান্তিকর বক্তব্য দিক না কেন যুদ্ধাপরাধীদের মত জঙ্গী সন্ত্রাসীদের বাচাঁতে পারবে না। খোদ জঙ্গীরাই বঙ্গবন্ধুর খুনীদের মত স্বঘোষীত খুনি। ফলে বিভ্রান্তির জ্বাল তৈরী করে লাভ নেই।
তথ্যমন্ত্রী ইনু বলেন, নিরাপরাধ জনগনকে রক্ষার জন্য সরকার জঙ্গী ছাড়া আর কারো গায়ে হাত দিচ্ছে না। জঙ্গীদের বিরুদ্ধে সরকার কঠোর অবস্থান নিয়েছে। রাজনীতি ও উন্নয়নের চাকা অব্যাহত রাখতে যে কোন মূল্যে ঐক্যবদ্ধভাবে জঙ্গী দমন যুদ্ধ শেষ পর্যায়ে নিয়ে যাব এবং জঙ্গীমুক্ত বাংলাদেশ গড়ব।
আগাম নির্বাচন প্রশ্নে তথ্যমন্ত্রী ইনু বলেন, নির্বাচন সাংবিধানিক ব্যাপার বুদ্ধিমান নেতা নেত্রীর নির্বাচনের প্রস্তুতি সময়মত নেওয়া উচিত। প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের জন্য তার দলকে গোছানোর নির্দেশ দিয়েছেন। এই নির্দেশের সাথে নির্বাচনের সময় হেরফের হওয়ার কোন কারণ নেই। নির্বাচন যথা সময়েই হবে। কেউ তা আটকাতে পারবে না, বানচালও করতে পারবে না। 

Post a Comment

0 Comments