কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের পদ্মায় নৌকাডুবি ॥ নিখোঁজ ১২ জনের লাশটি উদ্ধার




 কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার বৈরাগীর চর এলাকায় পদ্মা নদীতে নৌকা ডুবির ঘটনায় বৃহস্পতিবার বিকাল ৫টা পর্ষন্ত নিখোঁজ ১২ জনের সর্বশেষ লাশটিও উদ্ধার করেছে পুলিশ। এর আগে পর্যায়ক্রমে ১১টি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।
এর মধ্যে বৃহস্পতিবার ভোর রাতে ও সকালে মিলে উদ্ধার হয়েছে পাঁচজনের লাশ।
বুধবার সন্ধ্যায় একজন ও রাতে দু’জনের লাশ উদ্ধার করা হয়। এরপর পর্যায়ক্রমে আরো তিনজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ধীরে ধীরে ১১ জনের লাশ উদ্ধার হলেও নিখোঁজ ছিল আরো একজন। বৃহস্পতিবার বিকাল ৫টার সময় সর্বশেষ ব্যাক্তির লাশ উদ্ধার করেছে। মিরপুর উপজেলার রানাখড়িয়া এলাকার পদ্মা নদী থেকে বিথী (১৪), দিভার (২০) , ভেড়ামারা উপজেলার রায়টা পাথরঘাটা এলাকার পদ্মা নদী থেকে ভাসমান অবস্থায় কালু শেখ (১৮), শিখা (১৮) ও শাহাজুল (২৮) এর মৃতদেহ পুলিশ উদ্ধার করে। অপরদিকে দৌলতপুর উপজেলার ফিলিপনগর কোলদিয়ার এলাকার পদ্মা নদী থেকে ভাসমান অবস্থায় শিপন (২৮), বিভা (২৩), স্বপন (২২), এমরান (১৪), ও কেয়ারের (৮) মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। বৃধবার রাত ৮টার দিকে কুমারখালী উপজেলার যদুবয়রা এলাকায় পদ্মার শাখা নদী গড়াইয়ে মালা আক্তার পলির (২৪) লাশ পাওয়া যায়। এছাড়াও কুষ্টিয়া সদর উপজেলার হরিপুর মহানগর ট্যাক এলাকা থেকে আরো একটি লাশ (২৫) উদ্ধার করে।
ভেড়ামারা থানার অফিসার ইনচার্জ মামুন খান জানান, ভেড়ামারার রায়টা এলাকায় পদ্মা নদীতে লাশ ভাসতে দেখে স্থানীয়রা খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।
প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার ঈদের দিন বিকেল ৩টার দিকে নৌকা ভ্রমণের উদ্দেশে ১৯ জন যাত্রী নিয়ে একটি নৌকা দৌলতপুর উপজেলার বৈরাগীর চর এলাকা থেকে পদ্মা নদীর মধ্যবর্তী একটি জেগে ওঠা চরে যাওয়ার সময় প্রবল স্রোতের মুখে পড়ে ডুবে যায়। এতে নিখোঁজ হয় ১২ জন।

Post a Comment

0 Comments