ভেড়ামারা ও মিরপুরে একাধিক অনুষ্ঠানে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এমপি || জিয়াউর রহমান চার নম্বর মীরজাফর


জাতীয় সমাজতান্ত্রীক দল-জাসদ সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু খালেদা জিয়াকে আস্তাকুঁড়ের মানুষ আখ্যা দিয়ে বলেন, ‘আপনি আস্তাকুঁড়ে বসে ইতিহাস নিয়ে যত ঘাঁটাঘাঁটি করবেন তত দুর্গন্ধ ছড়াবে। আপনি যদি এ পথ পরিহার না করেন, তাহলে কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি হওয়ার জন্য প্রস্তুত থাকুন।’

তথ্যমন্ত্রী আরো বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়া বাংলাদেশের নাম পাল্টানোর চেষ্টা করছেন, ইতিহাস পাল্টানোর চেষ্টা করছেন।’ শনিবার সকালে কুষ্টিয়ার  ভেড়ামারায় সড়কের কাজ পরিদর্শন করেন ও দুপুরে জেলা তথ্য অফিসের আয়োজনে মিরপুরে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নে জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, ‘পাকিস্তানিরা একবার বাঙালিদের পাকিস্তানি বানানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছে। আবার ৭৫র পর জেনারেল জিয়াসহ অন্য সামরিক শাসকও একই চেষ্টা করেছেন। সম্প্রতি খালেদা জিয়াও বাংলাদেশের নাম পাল্টানোর চেষ্টা করছেন।‘সঠিক ইতিহাস তুলে ধরার জন্য জাতীয় সংসদ নেতৃত্ব দিচ্ছে। সুতরাং সঠিক তথ্য দেশবাসীর সামনে তুলে ধরার ক্ষেত্রে জাতীয় সংসদের একশ ভাগ অধিকার আছে। আমরা যত সঠিক ইতিহাস তুলে ধরব, খালেদা জিয়া তত নাখোশ হবেন। কারণ উনি মিথ্যার ওপরে দাঁড়িয়ে আছেন ।
 এছাড়াও উপজেলা পরিষদ চত্বরে মিরপুর উপজেলা প্রশাসন এর আয়োজনে শিশু ও নারী উন্নয়ন যোগাযোগ কার্যক্রমের আওতায় দুই দিনব্যাপী শিশুমেলার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। সেখানে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘নারী হলো সমাজ পরিবর্তনের কাণ্ডারি। নারীরা অন্তরালে থেকে যে কাজ করেন তা সমাজকে ধীরে ধীরে সামনে এগিয়ে নিয়ে যায়। নারীরা আর্থিকভাবে স্বচ্ছল হলে তা পরিবারের কাজেই লাগে। তাই নারী ও শিশু নির্যাতন বন্ধ করে আন্তর্জাতিকভাবে কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছতে হলে নারীর উন্নয়নকে গুরুত্ব দিতে হবে।’দেশে যে নারী বান্ধব আইন আছে তা যেন নারীরা জানতে পারে তার জন্য অন্যান্য সংগঠনের পাশাপাশি সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি। শিশুরা রাজনৈতিক সহিংসতার শিকার হচ্ছে উল্লেখ করে মন্ত্রী আরও বলেন, ‘আজকের শিশুরাই আগামীর ভবিষ্যৎ আর তাই শিশুদের বিপদমুক্ত রাখতে হবে। রাজনৈতিক সুবিধা অর্জনে শিশুদের ব্যবহার বন্ধ করার আহ্বান জানান তিনি। অনুষ্ঠানে কেন্দ্রীয় নারী জোটের আহ্বায়ক ও মন্ত্রীর সহধর্মিনী  আফরোজা হক রীনা, জেলা জাসদ সভাপতি গোলাম মহসিন, সাধারন সম্পাদক আব্দুল আলিম স্বপন, ভেড়ামারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার রেজাউল করিম, মিরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কামারুল আরেফীন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আজাদ জাহান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) সিরাজাম মুনিরা, উপজেলার জাসদের সভাপতি মহম্মদ শরীফ, সাধারণ সম্পাদক আহম্মদ আলীসগ মাহজোটের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
পলাশীর প্রান্তরে নবাব সিরাজ উদদৌলার পরাজয়, ১৯৭১ ও ১৯৭৫ এর পর জিয়াউর রহমানকে চার নম্বর ‘মীরজাফর’ আখ্যা দিয়ে তথ্যমন্ত্রী  ও জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু এমপি বলেন, জিয়া ও মোস্তাকের ভূমিকা ছিল রাজনৈতিক শয়তানের ভূমিকা, খলনায়কের ভূমিকা। মুক্তিযুদ্ধের ইমাম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের এক হাজার মুকাব্বরের মধ্যে জিয়াউর রহমান একজন মুকাব্বর মাত্র। জিয়াউর রহমান জানতেন যে, বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বেই যুদ্ধ হয়েছে এবং বঙ্গবন্ধুর রাষ্ট্রপতিত্বে গঠিত সরকারের অধীনেই তিনি একজন সেক্টর কমাণ্ডার হিসেবে মুক্তিযুদ্ধ করেছেন। আবার যুদ্ধ শেষে জিয়াউর রহমান বঙ্গবন্ধুর সরকারের অধীনে একজন সেনা কর্মকর্তা হিসেবে চাকুরি করেছেন।  কিন্তু বঙ্গবন্ধুর হত্যার পরে জিয়াউর রহমান বাংলাদেশের সংবিধান ও ইতিহাসের সঙ্গে মীরজাফরী করেন। জিয়াউর রহমান হলেন বাংলাদেশের ইতিহাসের চার নম্বর মীরজাফর ও বিশ্বাসঘাতক। খালেদা জিয়ার ১৫ অগাস্ট জন্মদিন পালন এবং জিয়াউর রহমানকে স্বাধীনতার ঘোষক ও দেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি দাবি করার বিষয়টি উল্লেখ করে জাসদ সভাপতি ইনু আরো বলেন,  খালেদা জিয়ার মাথা খারাপ হয়ে গেছে। গ্রমের কৃষক বলছেন, পাগলের কী মাথা খারাপ হয়ে গেল? সাবেক সামরিক শাসক জিয়াউর রহমানের আমলে জামায়াতে ইসলামীকে রাজনৈতিকভাবে প্রতিষ্ঠার কথা তুলে ধরে রাজাকার আমদানি পাগলামি, না রাজনৈতিক শয়তানি?” শনিবার কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা গোলাপনগরের হযরত সোলাইমান শাহ্ চিশতীর (র.) মাজার জিয়ারত শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন, কুষ্টিয়া জেলা জাসদের সাধারন সম্পাদক আব্দুল আলিম স্বপন, জনসংযোগ বিষযক সম্পাদক নবির উদ্দিন নবির, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক বুলবুল কবির, ভেড়ামারা উপজেলা জাসদের সভাপতি গোলাম ফারুক মাষ্টার সাধারন সম্পাদক এসএম আনছার আলী।

Post a Comment

0 Comments